তারাপীঠে বেড়াতে যাওয়ার নাম করে হোটেলে স্বামীর হাতে খুন স্ত্রী, গ্রেপ্তার স্বামী

মুর্শিদাবাদ:- তারাপীঠে বেড়াতে যাওয়ার নাম করে হোটেলে স্বামীর হাতে খুন স্ত্রী, গ্রেপ্তার স্বামী। বৃহস্পতিবার সকাল দশটা নাগাদ তারাপীঠের এক হোটেল থেকে যুবতীর মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনার পর থেকেই ওই যুবতীর স্বামী নুরুল ইসলাম পলাতক ছিলেন।

হোটেল রেজিস্টার থেকে পুলিশ জানতে পেরেছে মৃতের নাম রুবিনা খাতুন। তার মায়ের নাম সুইটি খাতুন, বাড়ি লালবাগ থানার মতিঝিল এলাকায়। মৃত রুবিনা খাতুনের স্বামী নুরুল ইসলাম, পিতা নজরুল সেখ, ওমরাহগঞ্জের বাসিন্দা। এই নজরুল সেখ হাজারদুয়ারিতে কর্মরত বলে জানা গেছে।

হোটেল সূত্রে জানা যায় সকাল সাতটা নাগাদ এদের ঘর ছাড়ার কথা ছিল, কিন্তু সময় পেরিয়ে যাওয়ার পরও তাদের মোবাইলে ফোন করলে সুইচ অফ পাওয়া যায়। পরে অনেক ডাকাডাকি করার পর ঘরের ভিতর থেকে সাড়া না পেয়ে হোটেল কর্তৃপক্ষ পুলিশকে খবর দেয় । পুলিশ হোটেলে এসে ডুবলিকেট চাবি দিয়ে ঘর খুলে দেখে যুবতীর মাস্ক পরা প্রাণহীন দেহ বিছানার ওপর পড়ে রয়েছে। পুলিশ দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রামপুরহাট হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায় মুর্শিদাবাদ থানার ওমরগঞ্জের বাসিন্দা নজরুল শেখের ছেলে নুরুল ইসলামের সঙ্গে রুবিনা খাতুনের এক বছর বিয়ে হয়েছে। যদিও বিয়ের আগে প্রেমের সম্পর্কে একাধিকবার রুবিনার সঙ্গে ঘর ছেড়েছিল নুরুল। তারপর বাধ্য হয়েই পরিবারের লোকজন রুবিনার সঙ্গে নুরুলের বিয়ে দেয় । পরিবার সূত্রে আরও জানা যায়, হাজার দুয়ারির পাশাপাশি নুরুল ইসলাম বহরমপুর মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজের অস্থায়ী কর্মী হিসেবেও কাজ করতো। রুবিনার মামা রাজেশ সেখ বলেন, পরিকল্পিত ভাবে এই খুন করা হয়েছে। আমরা চাই দোষীর উপযুক্ত শাস্তি হোক।

এদিন শুক্রবার সন্ধ্যায় লালবাগে নিজের বাড়িতে আসতেই নুরুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে রামপুরহাট থানার। এরপর তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *